1. admin@moulvibazarnews.com : admin :
  2. : backup_ed3d19ee53606a71 :
  3. newsdesk@moulvibazarnews.com : newsdesk :
  4. bdoffice.bnus@gmail.com : newsup :
  5. subeditor@moulvibazarnews.com : sub editor :
October 20, 2021, 12:59 pm

ছোটগল্প || পাথরের শব্দ

  • Update Time : Thursday, March 4, 2021
  • 137 Time View

গনগনে রোদে ভরা উত্তপ্ত বিকেলে রেস্টুরেন্টে ঢুকে আমার মনে হলো, আমার চেয়েও দুঃখী মানুষ আছে এই জগৎ-সংসারে। তা না-হলে, এই অবেলায় রেস্টুরেন্টে একা একা বসে কেউ চোখের পানি মোছে? মানুষ নিজের চেয়ে দুঃখী মানুষ দেখলে দুঃখ অনেকখানি ভুলে থাকতে পারে। সে কারণেই কিনা জানি না, তবে আমার কৌতূহলী দুচোখ তার দিকেই নিবিষ্ট হয়ে ছিল।

কাঠফাটা রোদ থেকে এসে এসি রুমে ঢুকলেই মনে হয় বেহেশতে চলে এসেছি! এসি রুমের হিম হিম পরিবেশে স্বচ্ছ গ্লাসে বরফ টুকরো দেওয়া ঠান্ডা পানি খাওয়ার পর এত প্রশান্তি লাগে।

বিকাল সাড়ে তিনটা কি চারটার দিকে রোদের তেজ তখনও ঠনঠনে ভাব নিয়ে স্থির, তখন বাচ্চাদের জোর আবদারের মুখে বাধ্য হয়েই বাটালি পাহাড় দেখার জন্য বেরিয়েছিলাম। বাটালি পাহাড়ের প্রবেশ পথেই দেখি ক্যামেরা তাক করে লোকজন ভিড় করছে। কৌতূহল হয়। বকের মতো গলা উঁচু করে সামনের পাঁচিল ভেদ করতে চাই। তখনই চোখে পড়ে শাড়ি পরিহিতা কঙ্কনের রিনিঝিনি শব্দে তরুণীদের কিচিরমিচির। পাশে পাঞ্জাবি পরিহিত যুবকত্রয়। সুরঞ্জনা ওইখানে যেও নাকো- জাতীয় একটা আমেজ।

আমার বাচ্চারা ক্যামেরার চাকচিক্য উপেক্ষা করে পিচঢালা পথ ধরে পাহাড়ি রাস্তায় হাঁটতে থাকে। আমি তাদের কবজা করতে দৌড় দেই মোটা শরীর নিয়ে। একটু দৌড়াতেই হাঁপিয়ে উঠি। মাস্ক থাকায় নিঃশ্বাস নিতেও যেন কষ্ট হয়। অনেকদিন লকডাউন থাকায় বাটালি পাহাড়ের দু’ধারে সারি সারি উঁচু গাছপালার পাশাপাশি অনেক ঘাস লতাপাতায় জঙ্গল হয়ে আছে। আমরা মনে হয় একটু বেশিই তাড়াতাড়ি চলে এসেছি। কারণ মানুষজন তেমন নেই বললেই চলে। হঠাৎ হঠাৎ দু’একটা মোটর সাইকেল এত দ্রুত গতিতে সাঁই সাঁই গতিতে ছুটে যাচ্ছিল যে ভয়ই পাচ্ছিলাম! বাচ্চাগুলো অনেকদিন ঘরবন্দি থাকতে থাকতে ক্লান্ত হয়ে পড়ছিল। প্রতিদিন বায়না করে- কোথাও বেড়াতে নিয়ে যাও না মা। প্লিজ! স্কুল বন্ধ সেই মার্চ থেকে। অনলাইনে ক্লাস হয়। কিন্তু সেই ক্লাসে আমার বাচ্চারা কোনো আনন্দ পায় না।

গত কয়েকদিন ধরে কোথাও বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলছিল বারবার। গতকাল রাতে বলেছিলাম আজ বাটালি পাহাড়ে নিয়ে যাবো। তাই আজ সকাল থেকে তারা রেডি বাটালি পাহাড়ে যাওয়ার জন্য। আমার অবশ্য বাটালি পাহাড়ে আসার অন্য একটা বিশেষ কারণ ছিল। কিন্তু সকালের দিকে হঠাৎ করেই কারণটা রাস্তার ইলেক্ট্রিসিটির তারের মতোই ঝুলে গেল।

বাটালি পাহাড়ের উঁচু গাছের ফাঁক গলে সূর্য বাবা খুব বেশি কাবু করতে পারছে না আমাদের। পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় বাদামওয়ালা বলে, আফা বাদাম খান। বাদাম খাওয়ার প্রতি কোনো আগ্রহই দেখাল না আমার বাচ্চারা। কিছুটা উপরে যেতেই কেমন নিস্তব্ধতা ঘিরে ধরল। হৈ চৈ আর কোলাহলের মধ্যে থাকতে থাকতে অবস্থা এত খারাপ হয়েছে যে নির্জন পরিবেশ দেখলেই চিন্তা হয়- কোথাও কোনো সমস্যা হলো না তো! আমার বোন তো কানাডায় গিয়ে প্রথম কয়েকমাস খালি কাঁদতো। এই দেশে মানুষ থাকে কেমনে? আশেপাশে কেউ নেই। একটা বাসার চেয়ে আরেকটা বাসার দূরত্ব কত বেশি! এরা তরকারি কেনে কেমন করে? কোনো ফেরিওয়ালার শব্দও তো পাওয়া যায় না। এরা পুরনো পেপার বিক্রি করে কোথায়? বাসার সামনে দিয়ে হকার যাবে, যাওয়ার সময় হাঁক দেবে, সেই হাঁক শুনে ঘরে বসেই কত কাজ করতাম নিজের দেশে। আর এই বিদেশে কেমন করে কী করে- আপা নাকি ভেবেই পেতো না।

আপা কানাডায় যাওয়ার আগে আমরা যে বাসায় থাকতাম সেই বাসার পাশের বিল্ডিংগুলো এত কাছাকাছি ছিল যে রাতে ফিসফিস করে কথা বললে একটু কান খাড়া রাখলেই অন্য বিল্ডিংয়ের মানুষ সব গোপন কথা শুনে ফেলতে পারত। একবার আমি অনেক রাতে কেন জানি বারান্দায় গিয়ে শুনি পাশের বিল্ডিংয়ের মেয়ে একটা জানালায় দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে কেঁদে কেঁদে বলছে, ‘ইউছুফ, তুমি বুঝলে না, তুমি আমাকে বুঝলে না, আমি তোমার জন্য কাঁদছি ইউছুফ!’

পাহাড়ের নির্জনতা ভালো লাগছিল খুব। কিন্তু মোটরসাইকেলের দৌরাত্ম্যে স্বস্তিটুকু উবে যাচ্ছিল। আমার মেয়েরা খুব মজা পাচ্ছিল। অনেকদিন পর ঘর থেকে বের হলো। এক বোন আরেক বোনের হাত ধরে কিছুক্ষণ দৌড়ে, কিছুক্ষণ ধীর পায়ে হেঁটে, কিছুক্ষণ আবার আমার জন্য দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিল। হঠাৎ হঠাৎ আমার হাতের মোবাইল ফোনটা বেজে উঠলে অবশ্য বিরক্তি প্রকাশ করতে সময় নিচ্ছিল না ছোট মেয়ে। বলল, তুমি এত বিজি কেন মা? তুমি যখন আমাদের সঙ্গে থাকো সবাই তোমাকে এত ফোন করে কেন?
দরকারি ফোন মা। এগুলো রিসিভ করতে হয়।
ছোট মেয়ে পাকনা বুড়ির মতো বলে, তোমার অফিস টাইমে কি আমরা তোমাকে সারাক্ষণ ফোন করি?
সেটাও ঠিক- বলে আমি একটু হাসার চেষ্টা করি। কাজের ব্যস্ততাও বেড়েছে ইদানীং। সময় খুব টাই টাই হয়ে যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
All Rights Reserved 2008-2021.
Theme Customized By Positiveit.us